হাবিপ্রবিতে জেলহত্যা দিবস পালিত
Posted: ০৩ নভেম্বর ২০২০।


যথাযোগ্য মর্যাদায় দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে জেল হত্যা দিবস পালিত হয়েছে। জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) সকাল ১১ টায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মু. আবুল কাসেম এর পক্ষ থেকে ট্রেজারার অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদার বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রেজিস্ট্রার বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. মো. ফজলুল হক, কৃষি অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. ভবেন্দ্র কুমার বিশ্বাস , জনসংযোগ ও প্রকাশনা শাখার পরিচালক অধ্যাপক ড. শ্রীপতি সিকদার, আই. আর. টি. এর পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. তারিকুল ইসলাম, প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো.খালেদ হোসেন, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ড. ইমরান পারভেজ, আইভি রহমান হলের সুপার অধ্যাপক রোজিনা ইয়াসমিন লাকী, সিএসই অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. মাহাবুব হোসেন, হিসাব শাখার পরিচালক মো. মিজানুর রহমানসহ অন্যান্য শিক্ষক, কর্মকর্তা ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। এরপরে ক্রমান্বয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদ, কর্মকর্তা পরিষদ, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ ও কর্মচারীবৃন্দ।


এসময় অনলাইনে যুক্ত হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মু. আবুল কাসেম বলেন, ৩ নভেম্বর বাঙালি জাতির জীবনে ১৫ আগস্টের পর আর একটি কলঙ্কময় দিন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকরা বর্বরোচিতভাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করার কিছুদিন পরই বাংলাদেশকে নেতৃত্বশ‚ন্য, মেধাশ‚ন্য করতে বঙ্গবন্ধুর আজীবন রাজনৈতিক সহচর, জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। ঘাতকরা ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতর গুলি করে ও বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নির্মম ও নৃশংসভাবে হত্যা করে বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ, মন্ত্রিসভার সদস্য ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের হত্যাকান্ড এবং ৩ নভেম্বরের জাতীয় ৪ নেতার হত্যাকান্ড একই সুত্রে গাঁথা। যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল, যারা কোনোদিন বাংলাদেশ নামক স্বাধীন রাষ্ট চায়নি সেই পরাজিত শত্রুরাই পাকিস্তানের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় ফিরিয়ে নিতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নির্মমভাবে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে পাকিস্তানের দোসরা ভেবেছিল তারা এদেশকে পাকিস্তান রাষ্ট্রে পরিনত করতে পারবে। কিন্তু সেখানে বাধা হয়ে দাড়ায় জাতীয় ৪ নেতা। আর তারই ফলশ্রুতিতে ৩রা নভেম্বরের এই নির্মম ও নিষ্ঠুর তম জেল হত্যা। তিনি বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় চার নেতার রুহের মাগফেরাত কামনা করেন।



News and Events

winwin winwin winwin winwin winwin bongda tv winvn SEN88 D9BET